সম্পাদকীয়

সম্মানিত সাহিত্যপুরীর সাহিত্যপ্রেমী পাঠকবৃন্দ। সবাইকে সাহিত্যপুরীর সদ্যফোটা কাব্য ফুলের শুভেচ্ছা।

প্রতিভা বিকশিত হয় তা প্রকাশের মাধ্যমে। তাই সেই মাধ্যম বা মিডিয়ার গুরুত্ব অপরিসীম। প্রিন্ট মিডিয়া আমাদের শেকড় হলেও সেইদিক থেকে বর্তমানে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে অনলাইন মিডিয়া। এর গুরুত্ব ও অপরিহার্যতার কথা অনুধাবন করে দেশের জাতীয় দৈনিক পত্রিকাগুলো এবং কিছু প্রিন্ট ম্যাগাজিন ওয়েব পোর্টালের সাথে যুক্ত হয়েছে বিশ্বমিডিয়ায়। প্রতিযোগিতাময় এই বিশ্বমিডিয়ার সঙ্গে আবহমান বাঙলা ও বাঙালির মনন-সৃজন, শিল্প, সাহিত্য ও সংস্কৃতির সাথে প্রত্যেক্ষভাবে অংশগ্রহণের প্রত্যয়ে আমাদের এই উদ্যোগ। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে লুকিয়ে থাকা প্রতিভাগুলো খুঁজে বের করার তাগিদকে পুঁজি করে তাদের একটি সুনির্দিষ্ট প্লাটফর্ম তৈরির প্রয়াসমাত্র। বিশ্বব্যাপী বাঙলা ও বাঙালির অনলাইন সাহিত্য পত্রিকা “সাহিত্যপুরী”।

 

মানুষের সৃজনশীল ভাবনা, চিন্তা-চেতনা ও কর্মই তার শিল্পগুণ আর লিখন শিল্পই হলো সাহিত্য। বাংলা সাহিত্যের চলিত গদ্যরীতির প্রবর্তক প্রমথ চৌধুরীর মতে, যে জাতি মনে বড় নয়, সে জাতি জ্ঞানেও বড় নয়; কেননা ধনের সৃষ্টি যেমন জ্ঞান সাপেক্ষ তেমনি জ্ঞানের সৃষ্টি মন সাপেক্ষ এবং মানুষের মনকে সরল, সচল, সরাগ ও সমৃদ্ধ করার ভার আজকের দিনে সাহিত্যের ওপরও ন্যস্ত হয়েছে। কেননা, মানুষের দর্শন, বিজ্ঞান, ধর্মনীতি, অনুরাগ-বিরাগ, আশা-নৈরাশ্য, তার অন্তরের সত্য ও স্বপ্ন এই সকলের সমবায়ে সাহিত্যের জন্ম।

সাহিত্যের সঙ্গে তুলনা চলে খেলাধুলার। খেলাধুলায় যেমন নিছক আনন্দই প্রধান, সাহিত্যেও তাই। খেলাধুলায় যেমন নিছক আনন্দ ছাড়া অন্যকোনো উদ্দেশ্য নেই, সাহিত্যের উদ্দেশ্যও তেমনি -একমাত্র আনন্দ দান করা।” আমাদের সাহিত্যপুরী হোক তেমনি একটি আনন্দ ভূবন। সাগরের সীমা ও গভীরতা অসীম, সেখানে যেমন মহামূল্যবান মণিমানিক্য থাকে তেমনি কাদাও থাকে। আসুন না আমরা সেই সামান্য কাদাটুকুকে স্বীকার করে সম্প্রীতি ও অনুপ্রেরণাময় ভালোবাসাকে লালন করে খুঁজে নেই সেই পরমানন্দ। সাহিত্যপুরী লেখক নয়; লেখার মান যাচাই করে। আমরা সম্পাদনার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়ার চেষ্টা করবো। তবুও ভুল-ত্রুটি থাকা অসম্ভব কিছু নয়। তাই পাঠকবৃন্দ অবশ্যই ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। সেই সাথে আপনাদের মহামূল্যবান মতামত, পরামর্শ আমাদেরকে জানাতে পারেন, আমরা তা সাদরে গ্রহণ করার চেষ্টা করবো। সাহিত্যপুরীর আত্মপ্রকাশে যাঁরা নিরলস সহযোগিতা ও উৎসাহ-অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন। বিশেষকরে উপদেষ্ঠা সম্পাদক, প্রকাশনা সম্পাদক মহোদয়সহ সকল উপদেষ্টামন্ডলী ও শুভাকাঙ্ক্ষী তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধাপূর্ণ কৃতজ্ঞতা চিরকাল। যাঁরা লেখা পাঠিয়ে সহযোগিতা করছেন সবাইকে শ্রদ্ধা, ভালোবাসা ও অভিনন্দন। সুস্থ থাকুন, ভালো থাকুন, সাহিত্যপুরীর সাথেই থাকুন।


-সুজন কুমার রায়।
সম্পাদক ও প্রকাশক
সাহিত্যপুরী।